1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় দুপুর ১:০১ আজ সোমবার, ৯ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৫শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৭ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি




চিলমারীতে ১৯ মাস ধরে রেল যোগাযোগ বন্ধ, ভোগান্তিতে সাধারন যাত্রীরা

  • সংবাদ সময় : সোমবার, ৪ অক্টোবর, ২০২১
  • ৬৩ বার দেখা হয়েছে

গোলাম মাহবুব,চিলমারী(কুড়িগ্রাম)প্রতিনিধিঃ
গত ১৯ মাস ধরে কুড়িগ্রামের চিলমারী-রংপুর-পার্বতীপুর রেলপথে ট্রেন যোগাযোগ বন্ধ রয়েছে। করোনাভাইরাস সংক্রমণ, ড্রাইভার ও ইঞ্জিন স্বল্পতা এবং স্টেশন মাস্টার না থাকার অজুহাতে দেড় বছরের বেশী সময় ধরে বন্ধ থাকা রেলওয়ে যোগাযোগ সারাদেশে চালু হলেও অজানা কারনে চিলমারীর রেল যোগাগোগ চালু না হয়ে এখনও বন্ধই রয়ে গেছে।এতে স্বল্প ভাড়ায় এবং সহজে রেলপথে চিলমারী’র রমনা থেকে রংপুর হয়ে পার্বতীপুর ও পার্বতীপর থেকে রমনা স্টেশন যাতায়াতের সুবিধা থেকে বঞ্চিত রয়েছে ৯টি উপজেলার মধ্যও নিম্নবিত্ত শ্রেনীর সাধারণ যাত্রীরা। এছাড়াও ট্রেন চলাচল বন্ধ থাকায় ওই এলাকার ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা মারাত্মকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছে। সেই সাথে বেকার হয়ে পড়েছে রেলওয়ে স্টেশনকে ঘিরে খেটে খাওয়া বেশ কিছু যুবক।
জানা গেছে,গত বছরের ৮মার্চ দুপুরে চিলমারী’র রমনা থেকে পার্বতীপর গামী একটি ট্রেন ছেড়ে যাওয়ার পর আর ফিরে আসেনি। সেই ৮মার্চ ২০২০থেকে অদ্যাবধি বন্ধ রয়েছে ট্রেন যোগাযোগ। কবে থেকে আবারও নিয়মিতভাবে চিলমারী-পার্বতীপুর লাইনে ট্রেন যোগাযোগ চালু করা হবে সে বিষয়ে রেলওয়ে কর্তৃপক্ষের কেউই পরিস্কার করে কিছু বলতে পারছেন না।
সুত্রমতে,১৯২৮ সালের ২আগষ্ট বন্দর নগরী চিলমারী থেকে প্রথম রেলপথে রেল যোগাযোগ চালু হয়।তিস্তা থেকে কুড়িগ্রাম হয়ে চিলমারী’র রমনা স্টেশন পর্যন্ত ৫৭কিলোমিটার রেলপথের মধ্যে ৪৩কিলোমিটার রেলপথ পড়ে কুড়িগ্রাম জেলার ভেতরে।সে সময় যাত্রীদের সুবিধার্থে এই ৪৩কিলোমিটার রেলপথে স্থাপন করা হয় ৮টি স্টেশন। সে সময়ে কুড়িগ্রাম রেলপথ চালুর পর পার্বতীপুর-রমনা রেলপথে সকালে ও সন্ধ্যা মিলে ২টি ও লালমনিরহাট-রমনা পথে দুপুরে ও রাতে ২টিসহ মোট ৪টি ট্রেন চালু ছিল। ২০০২ সালের দিকে হটাৎ করে পার্বতীপুর-রমনা রুটে ১টি ও লালমনিরহাট-রমনা রেল পথের দুটি ট্রেনসহ মোট ৩টি ট্রেন বন্ধ করে দেয় কর্তৃপক্ষ। এরপর থেকে একটি ট্রেন পার্বতীপুর-রমনা রুটে সকালে রমনা এসে তিস্তা গিয়ে ফের দুপুরের ট্রেন হয়ে চলাচল করছিল। ২০২০সালের ৮মার্চ তারিখে ট্রেনটি রমনা থেকে ছেড়ে যাওয়ার পর অজানা কারনে প্রায় ১৯ মাস সময় থেকে আর তা চিলমারীতে আসছে না।
বন্দর নগরীর ব্যবসায়ী আবু তারেক,বিপ্লব,জুয়েল,মজিবর মিয়াসহ আরো অনেকেই বলেন,কম খরচে নিরাপদে বিভিন্ন মালামাল ট্রেনে পরিবহণ করতে পারতাম।কিন্তু ট্রেন বন্ধ থাকার কারণে বাস,ট্রাক, পিকআপ ভ্যান ও সিএনজি দিয়ে বেশি টাকা ব্যয় করে মালামাল পরিবহন করতে হচ্ছে।ফলে আমরা ক্ষুদ্র ব্যবসায়ীরা আর্থিকভাবে ক্ষতিগ্রস্থ হচ্ছি।
এ বিষয়ে কথা হলে বিরক্ত হয়ে এসব নিয়ে কথা বলতে ভাল লাগেনা বলে বিভাগীয় রেলওয়ে ব্যবস্থাপক নুর মোহাম্মদ জানান,আমাদের যা রিসোর্ট আছে তাতে এই মুহুর্তে ট্রেন চালানোর কোন সম্ভাবনা নাই।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ