1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় ভোর ৫:৪৫ আজ বৃহস্পতিবার, ৫ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২১শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৩ই রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি




অনলাইনে গাইবান্ধা চরের কোরবানীর গরু বেচা-কেনা

  • সংবাদ সময় : রবিবার, ৪ জুলাই, ২০২১
  • ৩২৯ বার দেখা হয়েছে

আফতাব হোসেন :
করোনায় এবারের ঈদ উল আযহায় কোরবানীর হাট চালুর সম্ভাবনা না থাকায় গাইবান্ধার চরাঞ্চলের গরুর মালিকেরা এবার ভালকিনি ডট কম নামে অনলাইনে গরু বিক্রির মাধ্যম গ্রহণ করছেন। ন্যায্যমূল্যে গরু ক্রয়-বিক্রয়ে মানবিক সহায়তায় এগিয়ে এসেছেন বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা গণ উন্নয়ন কেন্দ্র (জিইউকে)।
গাইবান্ধা জেলার কোরবানীর ঈদ সামনে রেখে সাঘাটা, ফুলছড়ি, সদর ও সুন্দরগঞ্জ উপজেলার ২৮টি ইউনিয়নের ১৬৫টি চর গ্রামের অন্ততপক্ষে ৭০ হাজার পরিবার ৩ লক্ষাধিক গরু মোটাতাজকরণ করে থাকে। এবছর এই সংখ্যা আরো বেশি বলে জানান গাইবান্ধা জেলা প্রাণীসম্পদ অফিস। গাইবান্ধার ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, যমুনা চরের এসব গরু স্থানীয় কোরবানী চাহিদা মিটিয়ে ঢাকা, নারায়নগঞ্জ, গাজীপুরম চট্টগ্রামসহ দেশের বিভিন্ন অঞ্চলে বিক্রিয় হয়।  তবে বর্তমান যানবাহন চলাচল ও কোরবানী গরুর হাট বন্ধ রয়েছে।  কবে নাগাদ হাটগুলো খুলে দেয়া হবে সেটি অনিশ্চিত। একারণে চরম বিপাকে পড়েছেন গরুর মালিকেরা। সাঘাটার দিঘলকান্দি চরের আব্দুল বারেক সরকার জানান, এবারে কোরবানীতে ৪টি গরু বিক্রির পরিকল্পনা থাকলে হাট না বসাতে মহা চিন্তিত আছি। কেননা প্রতিদিনি গরুগুলোর খাদ্যর জন্য এক হাজার টাকা ব্যয় হচ্ছে। এই সময়ে গরুর হাট জমে উঠলেও তা লকডাউনে হাট পুরোপরি বন্ধ রয়েছে।
কালুরপাড়া গ্রামের আ: জলিল প্রামানিক জানান, বন্যার পানি বাড়ছে,এই সময়ে তার ২টি গরু বিক্রি নিয়ে বেশ চিন্তিত। তিনি যদি গরু বিক্রি করতে না পারেন তাহলে বন্যাকালীন নিরাপত্তা ও খাদ্য সংকটের আশংকায় লোকসান গুনতে হবে।
গাইবান্ধা সদর উপজেলার কামারজানি ইউনিয়নের গো-ঘাট গ্রামের শাহাদত হোসেন। তার বাড়ির পাশেই কামারজানিতে বসতো উত্তরাঞ্চলের অন্যতম গরু-কেনা বেচার হাট। কিস্তু এবারের হাটগুলো বন্ধ আছে করোনার কারনে। এমন পরিস্থিতি তিনি তার ১৬১ কেজি ওজনের একটি ষাড় গরুকে মূল্য নির্ধারন করে ভাল কিনি ডট কমে আপলোড করেছেন। ইতোমধ্যে তিনি সাড়াও পেয়েছেন। গিদারী ইউনিয়নের রেনুকা বেগম তার গরুটির মূল্য, ওজন, রংসহ সব তথ্য দিয়ে ভাল কিনি ডট কমে আপলোড দিয়েছেন।
ভাল কিনি.কম এর  উদ্যোক্তা ও বাস্তবায়নকারী  বেসরকারি উন্নয়ন সংস্থা গণ উন্নয়ন কেন্দ্র (জিইউকে) এর নির্বাহী প্রধান এম. আবদুস্ সালাম জানান, গাইবান্ধা জেলার চরাঞ্চলের জীবন-জীবিকার অন্যতম উৎস গবাদি পশুপালন। আর জেলার প্রায় ৫০ হাজার পরিবার নিজে বা আদি নিয়ে কোরবানীর ঈদ উপলক্ষে গরু পালন করে অর্থউপার্জন আশায়। কিন্তু করেনায় হাট বন্ধ থাকায় এসব পরিবার বেশ চিন্তিত। বিষয়টি বিবেচনায় নিয়ে এই মানবিক কারণে গণ উন্নয়ন কেন্দ্র এসব পরিবারের গরু ন্যায্য মূল্যে বিক্রিতে সহযোগিতা উদ্যোগ নিয়েছে এবং ভাল কিনি ডট কম নামে একটি অনলাইন প্লাটফর্ম তৈরি করেছে। এখানে মধ্যসত্ত্বভোগী না থাকায় গরু পালনকারী ও ক্রেতারাই লাভবান হচ্ছে। তিনি আরো বলেন অনলাইনে ছবি দেখে ক্রেতা তার পছন্দ ও সাধ্যমতো গরু ক্রয়ের সুযোগ পাচ্ছেন এবং ঝামেলা ছাড়াই বাসা পৌঁছে দেয়া হচ্ছে।  এই সংস্থার পরিচালক আবু সায়েম জানান,  গরুর মালিকেরা অনলাইনে গরু বিক্রির করতে চাইলে গণ উন্নয়ন কেন্দ্রের সাথে যোগযোগ করতে পারবে সেক্ষেত্রে সংস্থার স্বেচ্ছাসেবীরা সহযোগিতা করবে।

ভাল কিনি ডট কম এর আরেকজন উদ্যোক্তা ও পরিকল্পনাকারী  কেরামত উল্লাহ বিপ্লব জানান, এই মহা সংকটকালীন উত্তরের মানুষজন সহায়তা করাই আমাদের অন্যতম লক্ষ্য।
গাইবান্ধার পুলিশ সুপার মোহাম্মদ তৌহিদুল ইসলাম জানান, অনলাইনে গরু বিক্রিই এখন অন্যতম মাধ্যম কেননা, হাট বসার সম্ভাবনা খুবই কম। সেক্ষেত্রে প্রশাসনের পক্ষ থেকে চরের গরু অনলাইনে ক্রয়-বিক্রিতে পুলিশ প্রশাসন সহায়তা করে যাচ্ছে।
জেলা প্রশাসক আবদুল মতিন বলেন, অনলাইন বিক্রির মাধ্যমে স্বাস্থ্য ঝুঁকি কমানো সম্ভব।  একারণে গরু চাষীরা যাতে ক্ষতিগ্রস্ত না সেজন্য অনলাইন কেনা-বেচার পদ্ধিতই অনুসরনে ক্রেতা-বিক্রেতা উপকৃত হবে।
ব্রহ্মপুত্র, তিস্তা, যমুনা চরের মানুষজনের দেশিয় পদ্ধতিতে পালন-পালন করা কোরবানীর গরু পছন্দ বা ক্রয় করতে করতে www.valokini.com-এই ওয়বে ভিজিট করা যাবে এবং এখান থেকে যে কেউ ওর্ডার করলে আপনার কাছে পৌছে দেয়া হবে গরুটি। এতে করে একদিকে গ্রামের অসহায় পরিবারটি যেমন ন্যায্য মূল্য পাবে অন্যদিকে কোন ধরণের ঝুট-ঝামেলা ছাড়া  এবং স্বাস্থ্য ঝুঁকির মধ্যে না গিয়ে ঘরে বসেই আপনার কাছে কোরবানী গরুটি  পৌছে যাবে।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ