1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় দুপুর ২:২৩ আজ মঙ্গলবার, ৮ই আষাঢ়, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২২শে জুন, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১০ই জিলকদ, ১৪৪২ হিজরি




করোনায় দেশে ৫ সপ্তাহে মৃত্যু সর্বনিম্ন

  • সংবাদ সময় : বৃহস্পতিবার, ৬ মে, ২০২১
  • ৪০ বার দেখা হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট: দেশে করোনাভাইরাসে মৃত্যু ও সংক্রমণ নিম্নমুখী। কয়েক দিন ধরেই মৃত্যু কমতে শুরু করেছে। ২৪ ঘণ্টায় করোনাভাইরাসে আক্রান্তদের মধ্যে আরও ৫০ জনের মৃত্যু হয়েছে-যা পাঁচ সপ্তাহের মধ্যে সর্বনিম্ন। সর্বশেষ এর চেয়ে কম মৃত্যু হয় ৩০ মার্চ। সেদিন ৪৫ জন মারা যায়। এরপর ৩৫ দিনে মৃত্যু পঞ্চাশের নিচে নামেনি।

এ নিয়ে দেশে করোনায় মৃত্যুর সংখ্যা দাঁড়াল ১১ হাজার ৭৫৫। একদিনে দেশে আরও ১ হাজার ৭৪২ জনের দেহে করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ধরা পড়েছে। আগের দিন শনাক্ত হয়েছিল ১ হাজার ৯১৪ জন। সবমিলিয়ে শনাক্ত রোগীর সংখ্যা বেড়ে হয়েছে ৭ লাখ ৬৭ হাজার ৩৩৮। সরকারি হিসাবে আক্রান্তদের মধ্যে একদিনে আরও ৩ হাজার ৪৩৩ জন সুস্থ হয়ে উঠেছেন। এ পর্যন্ত সুস্থ হয়েছেন ৬ লাখ ৯৮ হাজার ৪৬৫ জন। বুধবার স্বাস্থ্য অধিদপ্তরের এক সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে এ তথ্য জানানো হয়েছে।

বাংলাদেশে করোনাভাইরাসের প্রথম সংক্রমণ ধরা পড়ে গত বছরের ৮ মার্চ। এ বছর ২৭ এপ্রিল তা সাড়ে ৭ লাখ পেরিয়ে যায়। আর ৭ এপ্রিল রেকর্ড ৭ হাজার ৬২৬ জন নতুন রোগী শনাক্ত হয়। প্রথম রোগী শনাক্তের ১০ দিন পর গত বছরের ১৮ মার্চ দেশে প্রথম মৃত্যুর তথ্য নিশ্চিত করে স্বাস্থ্য অধিদপ্তর। এ বছর ১ মে তা সাড়ে ১১ হাজার ছাড়িয়ে যায়। এর মধ্যে ১৯ এপ্রিল রেকর্ড ১১২ জনের মৃত্যু হয়। জন হপকিন্স বিশ্ববিদ্যালয়ের তালিকায় বিশ্বে শনাক্তের দিক থেকে ৩৩তম স্থানে বাংলাদেশ, আর মৃতের সংখ্যায় রয়েছে ৩৭তম অবস্থানে।

সংবাদ বিজ্ঞপ্তিতে আরও জানানো হয়, ২৪ ঘণ্টায় সারা দেশে ৪২৭টি ল্যাবে ২০ হাজার ২৮৪টি নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে। এ পর্যন্ত পরীক্ষা হয়েছে ৫৫ লাখ ৬০ হাজার ৬৭৮টি নমুনা। এরমধ্যে সরকারি ব্যবস্থাপনায় নমুনা পরীক্ষা করা হয়েছে ৪০ লাখ ৯৪ হাজার ৩৮৪টি আর বেসরকারি ব্যবস্থাপনায় ১৪ লাখ ৬৬ হাজার ২৯৪টি। ২৪ ঘণ্টায় নমুনা পরীক্ষার বিবেচনায় শনাক্তের হার ৮ দশমিক ৫৯ শতাংশ।

এ পর্যন্ত মোট শনাক্তের হার ১৩ দশমিক ৮০ শতাংশ। শনাক্ত বিবেচনায় সুস্থতার হার ৯১ দশমিক ০২ শতাংশ এবং মৃত্যুর হার ১ দশমিক ৫৩ শতাংশ। একদিনে যারা মারা গেছেন তাদের ৩২ জন পুরুষ আর নারী ১৮ জন। তাদের ৩৫ জন সরকারি হাসপাতালে, ১২ জন বেসরকারি হাসপাতালে মারা যান। বাসায় মারা গেছেন তিনজন। তাদের মধ্যে ৩০ জনের বয়স ছিল ৬০ বছরের বেশি, ১৩ জনের বয়স ৫১ থেকে ৬০ বছরের মধ্যে, পাঁচজনের বয়স ৪১ থেকে ৫০ বছরের মধ্যে এবং দুজনের বয়স ৩১ থেকে ৪০ বছরের মধ্যে ছিল।

মৃতদের মধ্যে ২৮ জন ঢাকা বিভাগের, ১৬ জন চট্টগ্রাম বিভাগের, একজন রাজশাহী বিভাগের, তিনজন খুলনা বিভাগের এবং দুজন সিলেট বিভাগের বাসিন্দা ছিলেন।

এ পর্যন্ত মৃত ১১ হাজার ৭৫৫ জনের মধ্যে ৮ হাজার ৫৪৪ জন পুরুষ এবং ৩ হাজার ২১১ জন নারী।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ