1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় সকাল ৯:৪৭ আজ বৃহস্পতিবার, ৩০শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি




প্রাথমিক শিক্ষক মহাসমাবেশ সফলে প্রস্তুতি সম্পন্ন

  • সংবাদ সময় : মঙ্গলবার, ২২ অক্টোবর, ২০১৯
  • ১৬৩ বার দেখা হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট: বেতনবৈষম্য নিরসনের দাবিতে টানা চার দিন ১ ঘণ্টা থেকে পর্যায়ক্রমে পূর্ণ দিবস কর্মবিরতি পালনের পর ঢাকার কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে বুধবারের (২৩ অক্টোবর) প্রাথমিক শিক্ষকদের মহাসমাবেশ সফল করতে ব্যাপক প্রস্তুতি নিয়েছে ১৪টি সংগঠন নিয়ে গঠিত মোর্চা বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ। সমাবেশে শিক্ষকদের ব্যাপক উপস্থিতি নিশ্চিত করতে দফায় দফায় দেশের বিভিন্ন স্থানে বৈঠক করেছে সংগঠনটি।

আগামী বুধবার সকাল ১০টায় কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে মহাসমাবেশে অংশগ্রহণ করার আহ্বান জানিয়েছেন ঐক্য পরিষদের নেতারা। সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে এবং প্রধান শিক্ষকদের ১০ম গ্রেডে বেতন বাস্তবায়নের দাবি আদায়ে সরকারি প্রাথমিক বিদ্যালয়গুলোতে গত ১৭ অক্টোবর পূর্ণদিবস, ১৬ অক্টোবর অর্ধদিবস, ১৫ অক্টোবর ৩ ঘণ্টা এবং এর ১৪ অক্টোবর কর্মসূচির প্রথমদিনে ২ ঘণ্টা কর্মবিরতি পালন করেন শিক্ষকরা। বাংলাদেশ প্রাথমিক শিক্ষক ঐক্য পরিষদ ডাকে এ কর্মসূচি পালন করা হয়।

বাংলাদেশ প্রাথমিক বিদ্যালয় ঐক্য পরিষদের মুখপাত্র মো. বদরুল আলম এডুকেশন বাংলা`কে জানান,প্রাথমিক বিদ্যালয়ের শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য নিরসন না করে কর্তৃপক্ষ শিক্ষকদের সাথে প্রহসনমূলক আচরণ করছেন। এতে করে প্রাথমিক শিক্ষার গুণগত মান কমেছে। ২৩ অক্টোবর ঢাকায় মহাসমাবেশে অন্তত ১ লাখ ২০ হাজার শিক্ষক উপস্থিত থাকবেন। মহাসমাবেশ থেকে আরও কঠোর আন্দোলনের ঘোষণা দেয়া হবে। শিক্ষকরা যাতে মহাসমাবেশে না আসে সেজন্য তাদের বিভিন্নভাবে ভয়ভীতি  ও শোকজ করা হচ্ছে বলেও অভিযোগ করেছেন এ শিক্ষক নেতা।

শিক্ষক ঐক্য পরিষদের সদস্য সচিব মোহাম্মদ শামছুদ্দীন মাসুদ এডুকেশন বাংলাকে বলেন, সরকার বা মন্ত্রণালয় আসন্ন সমাপনীর বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে দ্রুত পদক্ষেপ নেবে এটাই প্রত্যাশা শিক্ষকদের। অন্যথায় মহাসমাবেশ থেকে কঠোর কর্মসূচি ঘোষণা করা হবে।

সহকারী শিক্ষকদের ১১তম গ্রেডে বেতন নির্ধারণের দাবিতে ২০১৭ খ্রিষ্টাব্দে সহকারী শিক্ষকরা ঢাকা কেন্দ্রীয় শহীদ মিনারে আমরণ অনশনে বসলে তৎকালীন প্রাথমিক ও গণশিক্ষা মন্ত্রী মোস্তাফিজুর রহমান ফিজার ১ মাসের মধ্যে শিক্ষকদের দাবি বাস্তাবয়নের প্রতিশ্রুতি দিয়েছিলেন। সে আশ্বাসে শিক্ষকরা আমরণ অনশন স্থগিত করেন। কিন্তু ২ বছর পার হলেও শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য নিরসন হয়নি।

গত ডিসেম্বরে জাতীয় নির্বাচনের আগে শিক্ষকরা আবারো আন্দোলনের ডাক দিলে বর্তমান সরকার তাদের নির্বাচনী ইশতেহারে প্রাথমিক শিক্ষকদের বেতন বৈষম্য নিরসনের বিষয়টি অর্ন্তভুক্ত করেন। কিন্তু নির্বাচন পরবর্তী সরকারের ১০ মাস পার হয়ে গেলেও সঠিক কোনো উদ্যোগ না থাকায় শিক্ষকরা আবারও আন্দোলনে নেমেছেন।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ