1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় সকাল ১১:৪৬ আজ বৃহস্পতিবার, ১২ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৮শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২০শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি




রাত জেগে বুলবুল-নুরুন্নাহারের ফোনালাপ: কি কথা তাহার সাথে?

  • সংবাদ সময় : মঙ্গলবার, ২৪ জুলাই, ২০১৮
  • ১৯৬ বার দেখা হয়েছে

আর কিছুদিন পরই অনুষ্ঠিত হতে যাচ্ছে রাজশাহী সিটি কর্পোরেশন নির্বাচন। এখন চলছে মেয়র ও কাউন্সিলর পদপ্রার্থীদের প্রচার প্রচারণা। অনেকে প্রচার প্রচারণায় আনছেন নতুনত্ব। এ ক্ষেত্রে আওয়ামী লীগের মেয়র পদপ্রার্থী বেছে নিয়েছেন ডিজিটাল প্রচারণা। শুধু তাই নয় আওয়ামী লীগের লিটনের প্রচার প্রচারণায় নেতা কর্মীদের সাথে মাঠে দেখা যাচ্ছে তার স্ত্রী ও মেয়েকে। তার মেয়ে অর্ণা জামান দিনরাত বাবার পক্ষ থেকে প্রচার প্রচারণার কাজ চালিয়ে যাচ্ছেন। ইতোমধ্যে রাজশাহীবাসীর মন জয় করে নিয়েছেন অর্ণা জামান।

অন্যদিকে বিএনপির মেয়র পদপ্রার্থী মোসাদ্দেক হোসেন বুলবুল প্রচার প্রচারণা চালাচ্ছেন অনেক ধীর গতিতে। তার মূল কারণ কর্মী স্বল্পতা। মাদক বিরোধী অভিযানে বিএনপি এবং জামায়াতের অধিকাংশ তৃণমূলের নেতাকর্মীরা বর্তমানে কারাগারে। এজন্য অনেকটা ধীর গতিতে চলছে তার প্রচারণার কাজ। যদিও বুলবুল নিজেও অনেক দেরিতে বের হন প্রচার প্রচারণায়। যত দেরি করেই প্রচার প্রচারণায় বুলবুল বের হোক না কেন তার সাথে সবসময় দেখা যায় নারী কাউন্সিলর নুরুন্নাহারকে। এই নুরুন্নাহারকে নিয়েই চলছে রাজশাহীতে নানা রকম কানাঘুষা।

২০১৩ সালে বুলবুল মেয়র হিসেবে নির্বাচিত হওয়ার পর নুরুন্নাহারকে প্যানেল মেয়র হিসেবে নির্বাচিত করা হয়েছিলো। মূলত কানাঘুষার সূত্রপাত ওখান থেকেই। সেই সময় বিএনপিতে নুরুন্নাহার ছাড়াও অনেক যোগ্য কাউন্সিলর ছিলেন প্যানেল মেয়রের জন্য। কিন্তু বুলবুল তাকেই বেছে নিয়েছিলেন প্যানেল মেয়র নির্বাচনের জন্য। রাজশাহীর যে কোনো সামাজিক অনুষ্ঠান থেকে শুরু করে সব জায়গায় বুলবুল পাশে রাখতেন এই নুরুন্নাহারকে।

রাজশাহী সিটি কর্পোরেশনের অধিকাংশ কর্মকর্তা কর্মচারীদের মুখেও বুলবুল ও নুরুন্নাহারকে নিয়ে বিভিন্ন ধরণের মুখরোচক গল্প শোনা যায়। মেয়র থাকাকালীন সময় বুলবুল যতক্ষণ সিটি কর্পোরেশন অফিসে থাকতেন তার বেশিরভাগ সময়েই নুরুন্নাহারকেও বুলবুলের রুমে দেখা যেত বলে জানা যায় বিভিন্ন সূত্রে।

বুলবুলের দেরিতে প্রচারণায় বের হওয়ার নেপথ্যে রয়েছে এই নারী কাউন্সিলর নুরুন্নাহার। গভীর রাত পর্যন্ত বুলবুল তার সাথে মুঠোফোনে আলাপচারিতার জন্য সকালে ঘুম থেকে উঠতে দেরি করেন এবং এর প্রভাব পড়ে প্রচার প্রচারণায়। শুধু প্রচার প্রচারণা নয় এর প্রভাব পড়েছে তার পরিবারেও। বুলবুলের স্ত্রীর সাথে এ নিয়ে তার সংসারে চলছে টানাপোড়েন। অনেকটা নুরুন্নাহার সম্পর্কিত কারণে বুলবুলের প্রচার প্রচারণায় দেখা যাচ্ছে না তার স্ত্রীকে। এমনকি বুলবুলের ২৫ ভরি স্বর্ণের মূল মালিক তার স্ত্রী নয়। মূল মালিক এই নুরুন্নাহার। অনেকেরই প্রশ্ন বুলবুলের কিসের এত সখ্যতা এই নুরুন্নাহারের সাথে? যার জন্য তিনি নির্বাচনের মতো গুরুত্বপূর্ণ বিষয়কে দেখছেন হালকাভাবে। নির্বাচনের চিন্তা না করে রাত পার করছেন মুঠোফোনে আলাপ করে। বুলবুল যেন অনেকটা নুরুন্নাহারময়।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ