1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় সকাল ৮:৪১ আজ বৃহস্পতিবার, ৩০শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৩ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৯শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি




সৌন্দর্যের লীলাভূমি কক্সবাজারে নতুন মাত্রা মেরিন ড্রাইভ

  • সংবাদ সময় : শুক্রবার, ২৯ জুন, ২০১৮
  • ৪৫৯ বার দেখা হয়েছে

ডেস্ক রিপোর্ট: অপার সৌন্দর্যের লীলাভূমি আমাদের এই বাংলাদেশ। আমাদের দেশে রয়েছে পৃথিবীর একক বৃহত্তম ম্যানগ্রোভ ফরেস্ট, রয়েছে পৃথিবীর দীর্ঘতম সমুদ্র সৈকত কক্সবাজার। কক্সবাজার দেশের দক্ষিণ-পূর্বাঞ্চলে অবস্থিত একটি পর্যটন শহর। এখানে রয়েছে বিশ্বের দীর্ঘতম অবিচ্ছিন্ন প্রাকৃতিক বালুময় সমুদ্র সৈকত। যেখানে ভিড় জমায় হাজারো পর্যটক। এই পর্যটন নগরীর নতুন আকর্ষণ মেরিন ড্রাইভ। যা পৃথিবীর সৌন্দর্য পিপাসু  মানুষকে করবে বিমোহিত। এই মেরিন ড্রাইভে  একজন পর্যটন উপভোগ করতে পারবে  এক পাশে  আকাশে হেলান দেয়া পাহাড় এবং ওপর পাশে রয়েছে  দিগন্ত জুড়ে জলরাশির সমাহার।

কক্সবাজার মেরিনড্রাইভটি ৮০ কিলোমিটার দীর্ঘ একটি সড়ক। যা বঙ্গোপসাগর এর কোল ঘেঁষে কক্সবাজারের কলাতলী সৈকত থেকে টেকনাফ পর্যন্ত প্রসারিত। এটি পৃথিবীর দীর্ঘতম মেরিন ড্রাইভ সড়ক। বাংলাদেশ সড়ক পরিবহন ও সেতু মন্ত্রণালয়ের অধীনে এটির নির্মাণ কাজ পরিচালনা করে বাংলাদেশ সেনাবাহিনী। এর নির্মাণ কাজ ২০১৮ সালে শেষ হওয়ার কথা থাকলেও বাংলাদেশ সেনাবাহিনীর অত্যন্ত দক্ষতার সাথে কাজটি এক বছর আগেই শেষ করা হয়। মেরিন ড্রাইভটি নির্মাণ করতে মোট খরচ হয় প্রায় ১,০৫০ কোটি টাকা।

মেরিন ড্রাইভ নির্মাণের পর টেকনাফে যাতায়াত ব্যবস্থা আরেকটু সহজ হয়েছে। অনেকেই আগে জলপথের মাধ্যমে টেকনাফে যাতায়াতে অনিচ্ছা প্রকাশ করলে ও মেরিন ড্রাইভের এই সড়কটি তারা গ্রহণ করবে অত্যন্ত সানন্দে।

কক্সবাজারের সৌন্দর্যের পাশাপাশি মেরিন ড্রাইভটি পর্যটকদের মনে বাড়তি মাত্রা যোগ করেছে। সহজ করেছে টেকনাফ ভ্রমণ। মেরিন ড্রাইভের মনোমুগ্ধকর এই সৌন্দর্য উপভোগ করতে ভিড় করছে হাজারো পর্যটক। সরকার পর্যটন নগরীকে ঘিরে এরকম আরও অবকাঠামো নির্মাণের ফলে দেশের পর্যটন শিল্প আরো ত্বরান্বিত হবে। এরফলে  বহিঃবিশ্বে বাংলাদেশ পর্যটন নগরী হিসেবে আত্মপ্রকাশ করবে বলে আমরা আশা করছি।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ