1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় দুপুর ১:৩৬ আজ মঙ্গলবার, ২৮শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১১ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৭শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি




পলাশবাড়ীতে শিক্ষক লালশার শিকারে ৫ম শ্রেণির ছাত্রী অন্তঃসত্ত্বা

  • সংবাদ সময় : মঙ্গলবার, ২৪ অক্টোবর, ২০১৭
  • ৩৭৩৮ বার দেখা হয়েছে
পলাশবাড়ি প্রতিনিধি:
প্রাথমিক বিদ্যালয়ের  ৫ ম শ্রেণির এক এতিম ছাত্রীকে মাসের পর মাস ধর্ষন করেছে এক লম্পট শিক্ষক।   ধর্ষিতািএখন ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা। বিষয়টা ধামাচাপা দিতেও চলছে একশ্রেণির নানা তৎপরতা।
গাইবান্ধা জেলার পলাশবাড়ী উপজেলার প্রার্থমিক বিদ্যালয়ের এক শিক্ষকের বিরুদ্ধে  নিজ স্কুলের ৫ ম শ্রেণির এতিম ছাত্রীকে দিনের পড় দিন মাসে পর মাস সুযোগ বুঝে শ্রেণি কক্ষ সহ বিভিন্ন   স্থানে নিয়ে গিয়ে ধর্ষণ করে।  এদিকে দিনের পর দিন ধর্ষনের ঘটনায় স্কুল ছাত্রী ৫ মাসের অন্তঃসত্ত্বা হয়ে পরেছে। বিষয়টি ধামাচাপা দিতে উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার কর্তৃক লম্পট  শিক্ষকের ৫ দিনের ছুটি মঞ্জুর সহ বদলির বিষয়ে তৎপরতা চালাচ্ছেন বলে অভিযোগ সত্যতা মিলেছে। এধরণের ন্যাক্কারজনক ঘটনাটি ঘটেছে উপজেলার কিশোরগাড়ী ইউপির কাশিয়াবাড়ী ২নং সরকারী প্রাথমিক বিদ্যালয়ে।
 জানা যায়,ঐ বিদ্যালয়ের ৫ম শ্রেণির র ছাত্রী ও তার অভিভাবকরা সাংবাদিকদের জানান পিতা মাতা না থাকার সুবাদে  অনাথ সুমাইয়া তার নানা বাড়ী কাশিয়াবাড়ী শ্রী মুখ পাড়া গ্রাম থেকে লেখা পড়া করে আসছে।
 দারিদ্রতার এ পরিবারের সুযোগ নিয়ে ঐ বিদ্যালয়ের সহকারী শিক্ষক শফিউল আলম প্রধান শফি ৪র্থ শ্রেণিতে পড়ালেখা করা  অবস্থায়  বিভিন্ন প্রলোভন দেখিয়ে উক্ত ছাত্রীকে প্রথমে ধর্ষণ করে। পরে বিষয়টি কাউকে না জানার কথা বলে  এবং ইন্টারনেটে দেওয়ার ভয়ভীতি  দেখিয়ে ছাত্রীর সাথে দৈহিক সম্পর্ক গড়ে তোলে।
সে কখন ও শ্রেনী কক্ষে আবার কখন ও মটর সাইকেলে তুলে নিয়ে ছাত্রীকে আবাসিক কোন হোটেল কিংবা বিভিন্ন বিনোদন পার্কে নিয়ে প্রায়ই তার সাথে দৌহিক মেলামেশায় লিপ্ত হতো।এরই ধারাবাহিকতায় ছাত্রীটি ৫ মাসের অন্তসত্ত্বা হয়ে পড়লে বিষয়টি এলাকায় জানাজানি হয়।
ঘটনার প্রতিকার চেয়ে ছাত্রীর অভিভাবক নানা উপজেলা সহকারী শিক্ষা অফিসার জাকির হোসেন,ওই বিদ্যালয়ের প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম ও সভাপতি সরনাপন্ন হলে তারা কৌশলে ছাত্রী ও তার পরিবারকে বিষয়টি মিমাংসার জন্য গোপন রাখার পরামর্শ দেয়।পাশাপাশি মোটা অংকের অর্থের বিনিময়ে ডিএনসির মাধ্যমে ছাত্রীটির গর্ভজাত সন্তানকে নষ্ট করার পরামর্শ প্রদান।এতে ছাত্রী ও তার পরিবার অস্বিকৃতি জানালে লম্পট শিক্ষক শফি, প্রধান শিক্ষক নুরুল ইসলাম  ও সহ সহকারী শিক্ষা অফিসার জাকির হোসেন মামলা না  করার জন্য তাদের ভয়ভীতি ও হুমকি ধামকি প্রদর্শন করে।
 ২১ অক্টোবর ছাত্রীর পরিবার বিষয়টি এলাকাবাসীকে অবগত করলে অবস্থার বেগতিক দেখে চতুর সহকারী শিক্ষা অফিসার জাকির হোসেন লম্পট শিক্ষক শফিকে ছুটিতে যাওয়ার পরামর্শ প্রদান করে। পরামর্শ মোতাবেক লম্পট শিক্ষক ছুটির আবেদন করলে সহকারী শিক্ষা অফিসার তার ৫ দিনের ছুটি মঞ্জুর করেন।
সেই থেকে শিক্ষক শফি পালাতক রয়েছে।তবে থানায় অভিযোগ থেকে বিরত থাকার জন্য ছাত্রী ও তার পরিবারকে হুমকি ধামকি অব্যাহত রেখেছে।
ছাত্রীটির পরিবার হতে উক্ত লম্পট শিক্ষক শফিউল আলম শফির  বিরুদ্ধে  মামলার প্রস্তুতি নেওয়া হচ্ছে বলে জানা যায়।
এ ব্যাপারে পলাশবাড়ী থানার ওসি মাহামুদুল আলম সাংবাদিকদের বলেন অভিযোগ পাইনি, অভিযোগ পেলে দ্রুত পদক্ষেপ নিয়া হবে।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ