1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় বিকাল ৪:৩১ আজ শুক্রবার, ৩১শে বৈশাখ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৪ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ৩০শে রমজান, ১৪৪২ হিজরি




ক্যা বাহে ব্যাজার হলেন?

  • সংবাদ সময় : সোমবার, ১০ জুলাই, ২০১৭
  • ১১৬৫ বার দেখা হয়েছে

সৈয়দ নুরুল আলম জাহাঙ্গীর  :

শুকুর বারে জুম্মার নামাজের পরে খায়া দায়া হুজ্জত আলী খুলির টংগোত আরাম করি শোতে। হুজ্জত আলীর বউ একটা বালিশ আনিয়া মাতার তলোত গুঞ্জি দেয়। হুজ্জত আলী আরামে পান চাবাতে চাবাতে কয়, হুকাটা শুলকি আনো দেকি। এমন সমে কুড়ানু, নবেজ কানা, ঠসা ছইমুদ্দি, ন্যাংড়া হাপেজ, সগলে  এক এক করি টংগোত আসি বসে। ন্যাংড়া হাপেজ কয়, বাহে মানসে যে কয়, নোবে পাপ, পাপে মৃত্যু, কতা কোনা ঠিক বাহে। নবেজ কয়, ক্যা আগে বুজিস নাই? ন্যাংড়া হাপেজ কয়, বাহে বুজছোম, তবে হামার গাঁওয়ের মিজান মাষ্টারের মৃত্যুর কারন তোমরা জানেন? কুড়ানু কয়, মিজান ? মানে কলেজের প্রপেচার চেংড়াটা? নবেজ কয়, হ বাহে হ। ঐ মাষ্টারের ছোট ভাই ঢাকাত থাকে তাই এই ঈদে বাড়ীত আচ্চিল। মোর সাথে দেখা, মিজান মাষ্টারের মৃত্যুর কাহিনী শুনিয়া মুই অবাক হনু বাহে? সগলে কয়, কি হচিল বাহে? কি শুনচেন তোমরা? হুজ্জত আলী কয়,বাহে  ন্যাংড়া, কি হচিল কতো দেকি?ন্যাংড়া হাপেজ কয়, বাহে মিজান মাষ্টারের ভাই কয়, মাষ্টার যে, আত্মহত্যা করচিল, কিসোক করচিল? একটা জ্ঞানী সুস্থ সবল মানুষ এমনি আত্মহত্যা করে? কুড়ানু কয়, হ বাহে মানুষটা খুব ভাল আচিল, নবেজ কয়, বাহে ওমরা তো কবি আচিল। কবিতা নেকচে, দুই তিনটা কবিতার বই বাড়াচে।ন্যাংড়া কয় মিজান মাষ্টারের ভাই আসেল মোক কান্দি কান্দি কতাগুলা কলো বাহে। হুজ্জত আলী কয়, কি কচে কতো বাহে, প্যাচাল ছাড়। ন্যাংড়া কয়, মিজান মাষ্টারের ভাগনা মরার কয়েকদিন আগে বলে নলডাংগাত গেচিল কোনা এক কামে। নলডাংগার কাম সারিয়া বাড়ীত যাওয়ার সমে ঘাটাত দ্যাকে একনা বুড়া মানুষ খাড়া হয়া বিড়বিড় করতিচে। কুড়ানু কয়, ধোপাডাংগা আসার পথে। ন্যাংড়া কয় হ্যা বাহে, সগলে কয়, তারপর ?  তারপর মিজান মাষ্টারের ভাগনা বুড়া মানুষটার কাছে যায়া পুচ করে, ক্যা বাহে চাজী অনেকক্ষন  থাকি এটি খাড়া হয়া আচেনক্যা ? বুড়ার ব্যাটা বলে একটা কাগজের টেকার নোট বাইর করিয়া মিজানের ভাগনার হাতোত দিয়া কয়,দেকোতো বাহে এটা কেমন টেকা, মুই বুজোবনা, ম্যালা মানষোক দেকানু বাহে। মাষ্টারের ভাগনা নেকাপড়া জানা চেংড়া ,দ্যাকে ঐ টেকাটা আমেরিকার একশ ডলার। বুড়াটা কয় বাহে মুই এনা গাড়ী ধরিয়া বাড়ীত যাম। মোর মোবাইল নম্বরটা নেও, মাষ্টারের ভাগনা মোবাইল নম্বরটা নেওয়ার সাতে বুড়ার বেটা হাকুদাকু করিয়া দৌড়ি যায়। পাচ পাক হাতে এযে ডাক, নাহ শোনেনা।সগলে কয়, তার পর।তারপর মাষ্টারের ভাগনা নলডাঙ্গা হাতে  বাড়ীত আসে, আসিয়া মিজান মাষ্টারোক খুলি কয়। মিজান মাষ্টার কয়, করচিস কি? দেতো বুড়ার ব্যাটার নম্বরটা, মিজান মাষ্টার কল দেওয়ার সাতে ওপাক থাকি বুড়ার বেটা কয়, বাহে চেংড়া ওই টেকাটার খবর কি? কোন দ্যাশের? কয় বাহে মুই ওংকা দুই বস্তা টেকা পড়ি পাচোম বাহে, কিন্তু মুই চলবার গেলে বলে পুলিশ ধরবে, ভয়ে মুই নুকি থুচোম। মিজান মাষ্টার কয়, বাহে চাজী টেকাগুলা হামার কাচে বেচপেন? বুড়ার বেটা কয়, বাহে, মোর সাতে মস্কারী করেন? তোমরা ওগলা নিয়া কি করবেন? মিজান মাষ্টার কয়, বেচেন যদিল কও। বুড়ার বেটা কয়, একজন একলাখ টেকা দাম করচে বাহে দেম নাই, তোমরা যদি পাচলাখ দেন বেচিম। মিযান মাষ্টারের খুশী দ্যাকে কেটা? ভাগনাক কয়, বাবারে আল­াহ ছাপ্পড় ফারিয়া দিচে। এই একখান টেকার দাম ৮হাজার টেকা। ভাগনাক কয়, বাহে দুই দিনের মদ্দে ৫লাখ টেকা জোগার করো। মাষ্টার বউয়ের তামান গহনা বেচিয়া, জমাটেকা যা আচে সেগলা সহ এর ওর কাছে সুদের উপর টেকা নিয়া পাচলাখ টেকা গোচ করে। বউয়োক দিয়া ডাকি আনে ওমার শালাক। মোবাইলে বুড়ার বেটাক পুচ করে বাহে চাজী হামরা যামো কোটে কও। সগলে কয়, হয়নাকি? ন্যাংড়া কয়, মিজান মাষ্টার ওমার ভাগনা আর শালাক নিয়া বুড়ার কতামতো অংপুরের বাসোত চড়িয়া অওনা হয়। রংপুর শহরের কাচে যায়া নামে। সগলে কয়, কোন যাগা বাহে? ন্যাংড়া কয়, যাগাটার নাম কবার পায় নাই। বাসথাকি নামিয়ায় দেকে দুকনা হাড্ডা গোড্ডা মানষের মোটর সাইকেলোত বুড়ার বেটা বসি আচে। মাষ্টারের ভাগনাক দেকিয়া কয়, তোমার মামা আসে নাই? পরে মাষ্টারের সাতে পরিচয় হয়। মাষ্টার তার ভাগনা আর তার শালাক নিয়া দুই মটর সাইকেল  মানুষ     একটা অচেনা যাগাত যায়া খাড়া হয়। মাষ্টার, তার শালা আর ভাগনাক একটা ঘরের মদ্দে ঢুকি দিয়া মানুষগুলা চলি যায়।  ঘরের অন্য দিক হাতে দুটা চেংড়া  দুইটা ছালা নিয়া আসি মাষ্টারোক কয়, দেকেনতো বস্তার মদ্দে টেকা আচে এগলা তোমরা কিনবেন? মাষ্টার বস্তার মুক খুলিয়া বলে দ্যাকে, বস্তার মদ্দে আমেরিক্যান, কানাডা, মালয়েশিয়ার টেকা দিয়া ভর্তি, টেকা দেখিয়া মাষ্টারের বলে কান্দন, একবার শালা আর একবার ভাগনাক জরে ধরিয়া কান্দে আর কয়, বাবারে আল­া হামার দিন ঘুরি দিচে বাবা। এইবার হামরা মানসের মতোন মানুষ হয়া যামো। কয়েকটা বাস কিনমো, বড় একটা ফেলাট কিনমো ঢাকাত। বাবারে  টেকার জন্যে মোর গপ্পের বই, কবিতার বই ছাপা হয়না বাহে? মাষ্টারের পাগলামি শুরু হয়া গেলে হটাত দ্যাখে দরজাত ধেক্কা ধেক্কি, দরজা খুলি দিলে হুড়মুড় করিয়া দারোগা পুলিশ দিয়া ঘরটা ভরি যায়। মাষ্টার, তার শালা আর ভাগনার কলার ধরিয়া কিলঘুষি, কয় শালারা টেকা বানাবার আইচো?পুলিশ মিজান মাষ্টারোক কয়, এই শালা কতোটাকা নিয়া আচ্চোস? মাষ্টার কিচু কয়না। পুলিশ কয়, ই শালাক হেনকাপ নাগাও, কয়া মারে দুই ঘুষি, মাষ্টার কয় ওরে বাবারে।,  দুইকান ধরিয়া কয়, স্যার, আমি একজন প্রপেছার, আমাকে লোভ দেখিয়ে দুষ্টু লোকেরা এখানে এনেছে। কয়, অমাদের ছেড়ে দেন। পুলিশেরা মাষ্টার আর মাষ্টারের শালার সব্বশরীল চেকিন করিয়া গোপনে রাখা সাড়েচার লক্ষ টাকা বাইর করি  নেয়। তারপর আইফেল বুকোত ধরি কয় , শালারা এখান থেকে বেড় হয়ে দৌড়াও, পেছনে ফিরি দেকলে গুলি করি দেমো। মাষ্টার তার শালা, ভাগনা, ঘর থাকি বাই হয়া দৌড় দৌড় আর দৌড়। দৌড়াতে দৌড়াতে রংপুর ষ্টেশনোত আসিয়া হোটেলোত যায়া তিনজনে একজগ করি পানি খায়।পরে ট্রেনোত চড়িয়া  অনেক আতে গাইবান্ধাত নামে ওমরা।  সগলে কয়, দেকচেন বাহে, মানুষ কেমন ঠকবাজ ? ন্যাংড়া হাপেজ কয়, বাহে বাড়ীত আসিয়া এযে মিজান মাষ্টারের পেসার উটচে আর নামেনা, কতো ডাক্তার , কতো ওষুদ, নাহ, চিন্তায় চিন্তায় মিজান মাষ্টার খড়ির নাকান হয়া গেলো, বাড়ী হাতে বাড়ায়না, শ্যাষে বলে আত্মহত্যা করবার গেছিল, এম্বুলেঞ্চে রংপুর যাওয়ার পথে মাষ্টার মারা গেচে। সগলে কয়, হামরাতো এগলা শুনিনাই বাহে। কুড়ানু কয় মানুষ ধনসম্পদের নোভে পরলে জ্ঞানহারা হয়া যায়,হুজ্জত আলী কয়, বাহে কুড়ানু ঠগের কোনো ধর্মনাই, ঠসা ছইমুদ্দি কয়, আল­ায় যেন.জহরে কহরে মরন দেয়  শুয়ার গুলাক, ক্যা বাহে কেউকি ব্যাজার হলেন? (চলবে):- লেখক: সাংবাদিক,নাট্যকার, প্রবন্ধ লেখক।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ