1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় রাত ৮:২১ আজ শনিবার, ১লা জ্যৈষ্ঠ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ১৫ই মে, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২রা শাওয়াল, ১৪৪২ হিজরি




ক্যা বাহে ব্যাজার হলেন?

  • সংবাদ সময় : রবিবার, ৯ এপ্রিল, ২০১৭
  • ২৭৮ বার দেখা হয়েছে

সৈয়দ নুরুল আলম জাহাঙ্গীর:
বগড়াত যাবার ধরি দড়িয়াপুর হাতে ফিরি আচ্চি সেদিন । ঐদিন হাতে মোর কমর ধরি টানাটানি। উটতে বসতে ওরে বাবারে, গেনুরে, উহ উহ! এগলা আহাজারি শুনিয়া, গেরামের মিয়া মুরুব্বীরা কয়, বাহে হুজ্জত আলী ভাল ডাক্তার কবরাজ  দেখাও। কুড়ানু কয়, বাহে হুজ্জত চাজী, হাটো গাইবান্দাত যাই। করিমের ব্যাটা সরকারী কলেজোত পড়ে, তাঁই কয় বাহে হাসপাতালোত অর্তোপেটিকস ডাক্তার দেখান নাগবে,। মুই কনু তাঁই কি বাহে? করিমের ব্যাটা কয়, বাহে তাঁই  বড় ডাক্তার। পরীক্ষা করি ভাল ওষুদ দিবে। কুড়ানু কয়,কমর নিয়া নড়বার চড়বার পাননা। কোন হাড্ডি বেন ফিিট টাটি গেছে। মুই কনু বাহে তেজাল­ার বাচ্চা, আউ সাউ কতা কসনা ।   একবার আমের গাছ হাতে পরি ডান পাওটার হাড় হাড্ডি গুড়া হচিল, তাও কিচু হয়নাই মোর।  ভ্যান থাকি দৌড়ি নামবার যায়াা কমর চড়কি গেলেই মুই কি মনু বাহে? কুড়ানু আর করিমের ব্যাটা কয়, বাহে চাজী মজরা করেনক্যা? কুড়ানু কয়, মেরুডন্টের হাড্ডি যদিল ফাটি থাকে, ওপারশন করাও নাগবার পারে। মুই কনু, চুপ হ! এগলা অনশুনি কতা কলে মুই যাবারে নোয়াম।  গাইবান্ধার হাসপাতালোত যায়া  মাতাঘুরি পড়বার ধচ্চোম বাহে। হায়,হায়. ম্যায়া মদ্দে টিকিট কাটার হুরাহুড়ি বাহে। কার গাও কোটে ঘেসটে, কার কলকুনা কোটে নাগে। বাবারে ম্যায়া গুলাও সেই মতোন । মানষের চিপার মদদিয়া গতা মাছের নাকান প্যালৎ করি যাবা নাগছে। ভীর দেকিয়া কুড়ানুক কনু,  টিকিট ক্যাটপার পাবু? কুড়ানু কয়, আকিস বাহে, মোর একনা চিনা মানুষ আছে হেটে। টপস করি টিকিট আনি দিবে। এমন সমে কুড়ানু জোরে চিকরি উটে, বাহে চা..জি..ও বাহে..? কুড়ানুর চিক্কর শুনিয়া নাইনের কয়েকটা মানুষ দৌড় মারে। টিকিস ঘরটার সামনে ধেক্কা ধেক্কি পড়িযায়। কাঁই কোটে দৌড়াবে এই নিয়া পাড়াপাড়ি। একজন কয় বাহে হাসপাতালোত বলে পুলিশ আচ্চে আসামী ধরবার। মুই কনু তাতে তোমার কি? তোমরা দৌড়ান ক্যা? মানুষটা কয় বাহে ঐ কতা আর কননা । সেদিন ইষ্টিসনে টেনের টিকিট নিবার যায়া এদান শোর গোল। টেনোত বলে চেকিং দিচে। দশবারোটা পুলিশ ষ্টেসনের দক্ষিনে গেলে মানুষগুলা কয় অ্যালো বাহে, অর দৌড়ায়। উত্তরে গেলেও কয়, অ্যালোরে, আর দৌড়। পুলিশও পাচেপাচে দৌড়। বাহে মোর ভাস্তা মফিজল স্টেশন আসি পুলিশ দেখিয়া দৌড় মারছে। পুলিশে ওক টানিয়া আটক করচে। কতো দেওয়ানী দরবারী করিয়া ছোড়ানু বাহে।কুড়ানু কয়, আরে হে মপিজ, হাসপাতালোত পুণিশ টুলিস আসে নাই। এমন সোমে মোচারু একনা চেংড়া একটা টিকিট নিয়া আসি কুড়ানুক দেয়, কয় এই পুব দিকের সুলিখ্যান দিয়া কানির রুমে যাবেন। ডাকতার বসি আচে। কুড়ানু মোক সাতে নিয়া পুবের রুমটার কাছে যায়া কয়, বাহে দুনিয়ার বেটিছল কি এত্তি পড়ি মচ্চে? রুমোত ঢোকা যার তার কাম নয় । একপালা বেটিছলের গাও ঘেসটিয়া- মতলিয়া যাওয়া নাগবে। হেন সোমে ডাক্তারের রুম থাকি একনা মানুষ বাড়ায় মোক দেকিয়া কয়, বাহে হুজ্জত চাচা নাকি? মুই কনু কেটা বাহে তুঁই?চেংড়াটা কয় দুরো বাহে মুই, তোমার আলী বকসের ব্যাটা, ও: মাজিপাড়ার আলী বকস। চেংড়াটা কয় মুই এটি চাকরী করোম বাহে। তোমরা কি ডাক্তার দেকাবেন? কনু হ বাহে, কোন দিশা পাবানাগছিনা। চেংড়াটা কয় মোর পাচে পাচে আসো। ভীরটেলিয়া একপালা বেটিছলের হাতপাও মুচড়িয়া রুমটার ভেতরে বস্তার নাকান খাড়া করলো হামাক। ডাক্তÍটা ঝাপি উঠি কয়, আহা মুরুব্বী সিরিয়াল ভাংলেন যে? কেটাবা হেন সোমে পাছথাকি মোর কমরোত জোরে ঢেক্কা মারার সাথে মনেহয় মোর জিউ বাড়ে যাবে,  জোরে চিক্কর দিয়া কুড়ানুর উপুর গাও ছাড়ি দেম মুঁই। ডাক্তার কয়, আহ, আস্তে।আলী বকসের ব্যাটা কয় বাহে, এনা সবুর করেন। ডাক্তার স্যার একটা রুগি দেকতিছেন। ডাক্তার রুগি চেংড়িটাক পুচ করে বয়স কত? চেংড়ি কয় তেরো বছর। আরকোটে থাকেন বাহে। শিংড়ি উঠে ডাক্তারটা ,পুচ করে এই তোমার স্বামী এসেচে? পিতা মাতা? এত অল্প বয়সে তোমার বিয়ে দিয়েছে। তোমার রোগ হবেনা কেন? কয়, এই তোমার চেয়ারম্যান কে? যাও ভাগো, তোমার ওষুধ নাই। চেংড়িটা ভয়ে রুম হাতে বাড়ে যায়। ডাক্তার কয় এদের জালায় থাকা যায়না। কম বয়সে বিয়ে দেয়, নানারকম উপসর্গ নিয়ে হাসপাতালে হাজির। কুড়ানুক ফিস ফিস করি কনু, বাহে ফ্যাদলা ছাড়িয়া মোক দেকপার কতো বাহে,। পরে মোক অনেকক্ষন ধরি বোলাবুলি টেপা টেপি করি, টিকিটোত ওষুদ নেকি দেয়। সউগ ওষুথ বাইর হাতে কেনা নাগবে। কয় কয়েকদিন ওষুদ খান, না কমলে রংপুরে যাবেন।কুড়ানুক নিয়া ক্যাতরে ক্যাতরে হাসপাতালের বাইরে আসি,দেকোম ডাক্তারের ধমোক খাওয়া চেংড়িটা খাড়া হয়া আচে। দুই চোক মুচপানাগচে। সাতে ওর স্বামী। কুড়ানু কয়, ক্যা বাহে বয়স কম কচেন ক্যা? মানুষটা কয় ভুলোতে কম বয়স কচে বাহে, পরিচই পত্রে আঠারো আচে। কিন্তু জম্ম নিবন্দনে আচে তেরো ওটাই কচে। মুই কনু হুম, কুড়ানু কয় জরম নিবন্দন সই করি নেও না হলে তামানবাড়ি এই দশা হবে। মানুষটা কয়, হামার বাড়ীত বয়স আঠারো বাহে, কিন্তু বাপের বাড়ীর মানুষ জম্ম নিবন্দনের বয়স কয়। দ্যাকচেন বাহে? এ্যলাও দুই বাড়ী এক হয় নাই চেংড়িটাক কুড়ানু কয়, শ্বশুর বাড়ীর বয়সটা কন নাই ক্যা? মুই কনু ক্যারে কুড়ানু ওষুদগুলা খায়া ডাক্তারের কাচে অর একবার আসপুনা। কুড়ানু কয় হেটে আসিয়া কি হবে? ডাক্তারগুলা সউগ রুগিগুলাক আন্দাপাতালে রংপুর নেকি ছাড়িদেয়। তার উপুর ওষুদপত্র নাই। ক্যা বাহে কেউ কি ব্যাজার হলেন?




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ