1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় বিকাল ৪:১৭ আজ মঙ্গলবার, ১৫ই অগ্রহায়ণ, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ৩০শে নভেম্বর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ২৩শে রবিউস সানি, ১৪৪৩ হিজরি




গাইবান্ধা-১ আসনের সংসদ উপ-নির্বাচন : দ্বি-মুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা

  • সংবাদ সময় : রবিবার, ১২ মার্চ, ২০১৭
  • ৩১৪ বার দেখা হয়েছে

সুন্দরগঞ্জ সংবাদদাতা:
গাইবান্ধা-১ সুন্দরগঞ্জ আসনের সংসদ উপ-নির্বাচনের দিন যতই ঘনিয়ে আসছে প্রার্থীরা ততই ভোর্ট প্রার্থনার জন্য ভোটারদের দ্বারে-দ্বারে মরিয়া হয়ে ধর্ণা দিচ্ছেন। এ উপ-নির্বাচনে ৭ জন প্রার্থী অংশ গ্রহণ করলেও দ্বি-মুখী হাড্ডা-হাড্ডি লড়াইয়ের সম্ভাবনা লক্ষ্য করা যাচ্ছে। নির্বাচনে যারা অংশ গ্রহণ করেছেন তারা হলেন আওয়ামীলীগের গোলাম মোস্তফা আহম্মেদ (নৌকা), জাতীয় পার্টি (এ) ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পাটোয়ারী (লাঙ্গল), জাতীয় পার্টি (জেপি) সাবেক এমপি ওয়াহেদুজ্জামান সরকার বাদশা (বাইসাইকেল), জাসদ এ্যাড.মোহাম্মদ আলী প্রামানিক (মশাল), গণ ফ্রন্ট শরিফুল ইসলাম (মাছ), এনপিপি জিয়া জামান খাঁন (আম) ও স্বতন্ত্র মোস্তফা মোহসিন সরদার (আপেল)। প্রার্থীরা সকলেই উন্নয়নের প্রতিশ্রæতি দিয়ে ভোটারদের মাঝে ভোট প্রার্থনা করছেন। অনেকেই আবার নাওয়া-খাওয়া ছেড়ে দিয়ে দলীয় নেতা-কর্মীদের সাথে নিয়ে দিন-রাত নির্বাচনী এলাকা চষে বেড়িয়ে ভোটারদের নিকট কুশল বিনিময়সহ ভোট প্রার্থনা করছেন। এদিকে ভোটাররাও প্রার্থীদের যোগ্যতা, অভিজ্ঞতা ও দলীয়  বিষয় বিবেচনায় আনছেন। এতে করে ভোটারদের মুখে-মুখে যাদের নাম বেশি শোনা যাচ্ছে তাদের মধ্যে রয়েছেন আ’লীগ মনোনিত প্রার্থী সুন্দরগঞ্জ উপজেলা আ’লীগের সাধারণ সম্পাদক, ১৯৯১ সালে জাতীয় সংসদ নির্বাচনে নৌকা প্রতীক নিয়ে প্রতিদ্ব›িদ্বতাকারী পরাজিত প্রার্থী, ২০১৪ সালে চেয়ারম্যান পদে উপজেলা পরিষদ নির্বাচনে দ্বিতীয় স্থান অধিকারী ও চন্ডিপুর ইউনিয়ন পরিষদের চেয়ারম্যান প্রবীণ রাজনৈতিক ব্যক্তিত্ব গোলাম মোস্তফা আহম্মেদ। তিনি আ’লীগের একজন বর্ষিয়ান রাজনীতিবিদ হওয়ায় তার প্রতি সাধারণ ভোটাদের দূর্বলতা লক্ষ্যনীয়। এছাড়া বর্তমান সরকারের চলমান উন্নয়ন ধারা অব্যাহত রাখতে তার বিকল্প নেই বলেও সাধারণ ভোটারেরা ভাবছেন। অপরদিকে জাতীয় পার্টির দূর্গ হিসেবে খ্যাত সুন্দরগঞ্জ আসনটি ২০০৮ ও ২০১৪ সালে হাত ছাড়া হওয়ায় দলীয় নেতা-কর্মীরা আসনটি পূণঃ উদ্ধারের মরিয়া হয়ে ভোর্ট প্রার্থনা করছেন। তারা জোট বেধে রাতদিন তাদের প্রার্থী জাতীয় পার্টির চেয়ারম্যান হুসেইন মোহাম্মদ এরশাদের আইন ও বিচার বিষয়ক উপদেষ্টা তরুণ রাজনীতিবিদ উপজেলা জাতীয় পার্টি সভাপতি ব্যারিস্টার শামীম হায়দার পার্টোয়ারী (লাঙ্গল) কে বিজয়ী করার প্রত্যয়ে ভোটাদের নিকট তাদের দলীয় প্রার্থীর যোগ্যতা তুলে ধরছেন। দিয়ে যাচ্ছেন সুন্দর সুন্দরগঞ্জ গড়ে তোলাসহ নানান উন্নয়ন মূলক প্রতিশ্রæতি। এতে করে ভোটারেরাও লাঙ্গলের প্রতি দূর্বল হয়ে পড়ছেন। এ অবস্থা চলতে থাকায় আগামী ২২ মার্চ এ আসনে জাতীয় সংসদের আসন্ন উপ-নির্বাচনে ভোটারেরা নৌকা ও লাঙ্গল প্রতীকের প্রার্থীকে নিয়ে আলোচনা-সমালোচনায় মেতে উঠেছেন। তবে এ আসনে খালেদা জিয়ার নেতৃত্বাধীন ২০ দলীয় জোটের প্রার্থী না থাকায় তাদের সমর্থন যে দিকেই গড়বে সে দিকেই জয়ের মালা নিশ্চিত হবে বলে অনেকে মনে করছেন। তাই সংসদের  আগামী উপ-নির্বাচনে এ আসনে নৌকা ও লাঙ্গল প্রতিকের মধ্যে হাড্ডা-হাড্ডি দ্বি-মুখী লড়াইয়ের সম্ভাবনা রয়েছে। নির্বাচনী এলাকার সাধারণ ভোটারা মনে করছেন বিগত ২০১৩ সালের ২৮ ফেব্রæয়ারী ঘটে যাওয়া সুন্দরগঞ্জের ৪ পুলিশ হত্যা, অগ্নিসংযোগ ঘর-বাড়ি ভাংচুর ও ধ্বাংসাক্ত কর্মকান্ডকে ঘিরে দোষি ও নির্দোষ ব্যক্তি মিলে প্রায় ৪ ভাগের ৩ ভাগ লোক ভয়ভীতিতে দিন কাটছে। ওই ঘটনাকে কেন্দ্র করে অসংখ্যক নিরিহ লোক জেল খাটছে। অনেক আবা কোর্টে হাজিরা দিতে দিতে নাজেহাল হয়ে পড়েছে। কোন প্রার্থী তাদেরকে এই অসহোনীয় পরিস্থিতির মোকাবেলা করতে পারবে। ভোটারা সেদিকটা ভাবছেন। গেল বছরের ৩১ ডিসেম্বর সন্ধ্যায় দিনের শেষ ভাগে সর্বান্দন ইউনিয়নের উত্তর সাহাবাজ মাস্টার পাড়া গ্রামের নিজ বাড়িতে দূর্বৃত্তদের গুলিতে সংসদ সদস্য মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন নিহত হলে আসনটি শূণ্য হয়।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ