1. aftabguk@gmail.com : aftab :
  2. ashik@ajkerjanagan.net : Ashikur Rahman : Ashikur Rahman
  3. chairman@rbsoftbd.com : belal :
  4. ceo@solarzonebd.com : Belal Hossain : Belal Hossain
×
     

এখন সময় বিকাল ৪:৪৮ আজ বুধবার, ১১ই কার্তিক, ১৪২৮ বঙ্গাব্দ, ২৭শে অক্টোবর, ২০২১ খ্রিস্টাব্দ, ১৯শে রবিউল আউয়াল, ১৪৪৩ হিজরি




এমপি লিটন হত্যা: রানাও অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ নিয়েছিল

  • সংবাদ সময় : শনিবার, ২৫ ফেব্রুয়ারি, ২০১৭
  • ১৮৪ বার দেখা হয়েছে

সুন্দরগঞ্জ সংবাদদাতা
গাইবান্ধা-১ (সুন্দরগঞ্জ) আসনের সরকার দলীয় এমপি মঞ্জুরুল ইসলাম লিটন হত্যায় কিলিং মিশনে জড়িত আনারুল ইসলাম ওরফে রানাও অস্ত্র চালানোর প্রশিক্ষণ নিয়েছে। তাকেও কিলিং মিশনের দক্ষ করার জন্য ডা. কাদের খান বিশেষভাবে দক্ষ করেছিল।  কাদের খান এমপি হলেও সেও বিশেষ সুবিধাভোগ, এমপি লিটনেরপ্রতি রাজনৈতিক ক্ষোভ, কাদের খানের নিকট আস্থাভাজন ও পাওয়ারফুল সহযোগী হিসেবে টিকে থাকা এসব নানা কারণে উৎসাহী হন কিলিং মিশনে অংশ নিতে। এমপি লিটনকে হত্যার দিন সেও গুরুত্বপূর্ণ দায়িত্ব পালন করে। আদালতে এমন তথ্য দেন বলে জানা যায়।
গতকাল বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে ৩টা থেকে সন্ধ্যা সাড়ে ৭টা পর্যন্ত টানা ৪ ঘন্টার স্বীকারোক্তিমূলক জবানবন্দী রেকর্ড পূর্বক গাইবান্ধার সিনিয়র জুডিশিয়াল ম্যাজিস্ট্রেট আদালতের বিজ্ঞ বিচারক- মি.জয়নুল আবেদীন  রানাকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন।
এরআগে ভোরে গাইবান্ধা পুলিশের একটি দল অভিযান চালিয়ে রানাকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার করে বিকেলে গাইবান্ধায় নিয়ে আসে।
আনারুল ইসলাম রানা উপজেলাটির শ্রীপুর ইউনিয়নের ভেলারায় কাজীর ভিটা গ্রামের তমছের আলীর পুত্র। সে এমপি লিটন হত্যায় কিলিং মিশনের গুরুত্বপূর্ণ তথ্য দিয়েছে জানিয়ে থানার অফিসার ইনচার্জ- মুহাম্মদ আতিয়ার রহমান বলেন-কিলিং মিশনে জড়িত রানাকে ঢাকা থেকে গ্রেফতার পূর্বক বিজ্ঞ আদালতে হাজির করা হলে আদালত তাকে জেল হাজতে প্রেরণের নির্দেশ দেন। তিনি আরও বলেন, এমপি লিটন হত্যায় জড়িতদের চিহ্নিত, গ্রেফতার ও আলামত উদ্ধার অব্যাহত রয়েছে।
উল্লেখ্য, গেল বছরের শেষ দিন (৩১ ডিসেম্বর) সন্ধ্যায় উপজেলাটির সর্বানন্দ ইউনিয়নের দক্ষিণ সাহাবাজ মাস্টাপাড়াস্থ নিজ বাসভবনে আততায়ীদের গুলিতে আহত হন এমপি লিটন। এরপর রংপুর মেডিকেল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি করা হলে কর্তব্যরত চিকিৎসকগণ সন্ধ্যা সাড়ে ৭টায় এমপি লিটনকে মৃত ঘোষণা করেন। সে সময় আলামত হিসেবে ডাক্তারদের রক্ষিত গুলি ও মোবাইল ফোনের সুত্র ধরে প্রশাসনের ব্যাপক তৎপরতা অব্যাহত থাকায় এ হত্যাকন্ডের মোটিভ উদঘাটন চলছে বলে জানা গেছে।




সংবাদটি শেয়ার করুন

এই ধরনের আরো সংবাদ