এখন সময় ভোর ৫:৫৫ আজ শুক্রবার, ২৭শে চৈত্র, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ১০ই এপ্রিল, ২০২০ ইং, ১৫ই শাবান, ১৪৪১ হিজরী


এই মাত্র পাওয়া সংবাদ
Home / জাতীয় / ফুলছড়িতে সরকারি জায়গা দখল করে পুজা মন্ডপ তৈরির অভিযোগ!

ফুলছড়িতে সরকারি জায়গা দখল করে পুজা মন্ডপ তৈরির অভিযোগ!

ফুলছড়ি প্রতিনিধি: গাইবান্ধার ফুলছড়িতে সরকারি জায়গা দখল করে রাতারাতি পুজা মন্ডপ তৈরির অভিযোগ উঠেছে। জানা যায়, উপজেলার উদাখালী ইউনিয়নের কাঠুর মৌজায় দীর্ঘদিন হলো ৩৪৮৭ দাগের ১ নম্বর খাস খতিয়ানে কাঠুর হাট-বাজারের নামে ২৬ শতাংশ জমি রয়েছে।  সেখানে উদাখালী ও উড়িয়া ইউনিয়নের জন্য কাতলামারী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভবন নির্মানের স্থান নির্বাচন করা হয়। ভবন নির্মানের প্রয়োজনীয় প্রক্রিয়া শেষে ঠিকাদার উক্ত স্থানে ভবন নির্মানের কাজ করতে গেলে সেখানে নতুন করে জটিলতা দেখা দেয়।
সরেজমিন দেখা যায়, উদাখালী ইউনিয়নের কাঠুর বিলের পার্শ্বে পাকা রাস্তার সাথে এক খন্ড উঠানে সদ্য তোলা একটি টিন দিয়ে ছাপড়া তোলা মন্ডপ ঘর। মন্ডপের  পাশেই একটি গোয়াল ঘর। উঠানে অনেকগুলো জ্বালানি কাঠ রোদে শুকাতে দেয়া আছে। মন্ডপের ভিতরে এক কোনায় একটি শিব মুর্তি। দেখে মনে হলো কয়েকদিন হলো এখানে পুজা করা হয়েছে।
কাতলামারী ইউনিয়ন ভূমি সহকারী কর্মকর্তা ইসহাক আলী সরকার বলেন, আমরা যখন সরকারি এ জায়গাটিতে ভবন নির্মানের প্রস্তাব প্রেরণ করি তখন এখানে কোন পুজা মন্ডপ ছিল না। ভবনের বরাদ্দ আসায় যখন আমরা ঠিকাদারকে সীমানা নির্ধারন করে দিয়ে আসলাম তার পরেই দেখি সেখানে একটি ছোট ঘর তুলে একটি মুর্তি রেখে দিয়েছে।
উপ-সহকারী প্রকৌশলী এমদাদুল হক মোল্লা বলেন, কাতলামারী ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভবন নির্মানের জন্য ৫৪ লক্ষ ৭৬ হাজার টাকায় ঠিকাদারি প্রতিষ্ঠান ইউনিক এন্টারপ্রাইজের সাথে চুক্তি করা হয়েছে। ঠিকাদারকে ২০১৯ সালের ২৭ নভেম্বর  কার্যাদেশ প্রদান করা হয়েছে। ঠিকাদার কাজ করতে গেলে জমিটি ভোগ দখলকারী স্থানীয় স্বপন কুমার এবং তার ভাই তপন কুমার বিভিন্ন ভাবে হয়রানী ও বাঁধা সৃষ্টি করছে।
শুধাংশু মোহনের ছেলে স্বপন কুমার বলেন, এখানে আমরা হিন্দু ধর্মের লোকেরা প্রতি বছর মাঘী সপ্তমী পুজা, কালী পুজা, মহানাম যজ্ঞসহ বিভিন্ন পুজা করে থাকি। সর্বশেষ গত ২০ ফেব্রুয়ারি এখানে পুজা মন্ডপ তৈরি করে শিব চতুর্দশী পুজা করা হয়েছে। তিনি উক্ত স্থানে ইউনিয়ন ভূমি অফিসের ভবন নির্মান না করার জন্য সংশ্লিষ্ট কর্তৃপক্ষকে অনুরোধ করেন।
 ফুলছড়ি উপজেলা নির্বাহী অফিসার মো. আবু রায়হান দোলন বলেন, সরকারের উন্নয়ন কাজ বাঁধাগ্রস্থ করতে সরকারি জায়গা দখল করে রাতারাতি পুজা মন্ডপ তৈরি করে সেখানে একটি মুর্তি রেখে দেয়া হয়েছে। বিষয়টি তদন্ত করে পরবর্তী প্রয়োজনীয় আইনি ব্যবস্থা গ্রহণ করা হবে।

Check Also

করোনা আতঙ্কে এগিয়ে আসেনি কেউ, চার মেয়ের কাঁধে বাবার লাশ

ডেস্ক রিপোর্ট: করোনা ভাইরাসের আতঙ্কে মারা যাওয়া এক ব্যক্তির লাশ শ্মশানে নিতে কেউ এগিয়ে এলো …