এখন সময় রাত ১:৪৭ আজ শুক্রবার, ১৬ই ফাল্গুন, ১৪২৬ বঙ্গাব্দ, ২৮শে ফেব্রুয়ারি, ২০২০ ইং, ২রা রজব, ১৪৪১ হিজরী


এই মাত্র পাওয়া সংবাদ
Home / তৃণমূল সংবাদ / সাদুল্যাপুরে কৃষকের হলুদ রঙে রঙিন স্বপ্ন

সাদুল্যাপুরে কৃষকের হলুদ রঙে রঙিন স্বপ্ন

তোফায়েল হোসেন জাকির:
গাইবান্ধার সাদুল্লাপুর উপজেলার সবজির রাজ্য হিসেবে পরিচিত ধাপেরহাট। এ এলাকায় অন্যান্য ফসলের পাশাপাশি চাষ করা হয় ‘হলুদ’। কৃষকদের উৎপাদিত হলুদ বিক্রি টাকায় সংসার চলে তাদের। তাই মাটির নিচে লুকিয়ে থাকা হলুদ ফসলই যেন কৃষকদের রঙিন স্বপ্ন ।
সরজমিনে দেখা যায়, ধাপেরহাট ইউনিয়নের সদরপাড়া গ্রামের কৃষকরা কোদালের দাপটে মাটি খুড়ে খুড়ে হলুদ ফসল তুলছেন। এবারে তাদের কাঙ্খিত হলুদের বাম্পার ফলন হওয়ায় মুখে ফুটেছে হাসির ঝিলিক।
এসময় কথা হয় কৃষক আনছার আলী ম-লের সঙ্গে। তিনি হলুদ চাষ করার পদ্ধতি সম্পর্কে বলেন, সাধারণত বৈশাখ-জ্যৈষ্ঠ মাসে হলুদ রোপণ করা হয়। পৌষ-মাঘ মাসে হলুদ জমি থেকে উঠানো হয়। এ ফসলের প্রতি বিঘায় খরচ হয় প্রায় ১৩-১৫ হাজার টাকা। আর ফসল উৎপাদন হয় প্রায় ৭০ থেকে ৮০ মণ। বাজারে দাম ভাল থাকলে  প্রতিবিঘায় প্রায় ২২ থেকে ২৫ হাজার টাকা লাভ করা যায়। এবারে তিন বিঘা জমিতে হলুদ চাষ করেছেন বলে জানান আনছার আলী ম-ল।
আরেক কৃষক এন্তাজ উদ্দিন ব্যাপারী জানান, ধাপেরহাট এলাকার কৃষকরা যুগযুগ ধরে চাষ করে আসছেন  হলুদ। আর হলুদ ফসলের উপর নির্ভশীল তারা। যার লাভের অংশ দিয়ে পরিবারের সার্বিক চাহিদা পুরণের চেষ্টা করা হয়। এ ফসলটি অধিক লাভজন হওয়ায় ধীরে ধীরে এলাকাটি বাড়ছে হলুদ চাষির সংখ্যা।
এদিকে কৃষি সম্প্রসারণ বিভাগ জানিয়েছেন, এবারে লক্ষ্যমাত্রা ছাড়িয়ে চলতি  মৌসুমে ২৩৫ হেক্টর জমিতে হলুদ আবাদ করা হয়েছে। আর মসলা ফসলের মধ্যে হলুদ একটি নিত্যপণ্য দ্রব্য। রান্না কাজ ছাড়াও অনেক ধরণের প্রসাধনী কাজে ও রঙ শিল্পের কাঁচামাল হিসেবে হলুদ ব্যবহৃত হয়। যার ফলশ্রতিতে হলুদের চাহিদা অনেক বেশি। হলুদে বিভিন্ন ভিটামিন থাকে। যার ব্যবহারে আমাদের শরীর নানাভাবে উপকৃত হয়ে থাকে।
সাদুল্লাপুর উপজেলা কৃষি অফিসার খাজানুর রহমান জানান, ধাপেরহাট অঞ্চলে দিন দিন হলুদ চাষে ঝুকে পড়েছে কৃষকরা। এ ক্ষেত্রে কৃষকদেরও সহযোগিতা করা হচ্ছে।

Check Also

সুন্দরগঞ্জে চাষ হচ্ছে স্কোয়াশ লাভের আশায় কৃষকেরা

সুন্দরগঞ্জ প্রতিনিধিঃ গাইবান্ধার সুন্দরগঞ্জে স্কোয়াশ সবজি প্রথম বারের মতো চাষ হচ্ছে। লাভের আশা করছে কৃষক। …